By: Daily Janakantha

টরেন্টোর চিঠি ॥ মুক্তিযোদ্ধা মহিউদ্দিন আহমেদকে অন্তিম সালাম

চতুরঙ্গ

21 Jun 2022
21 Jun 2022

Daily Janakantha

আমার বড় চাচা মুক্তিযোদ্ধা ও সাবেক সচিব মহিউদ্দিন আহমেদ গত ২০ জুন ২০২২ মৃত্যুবরণ করেছেন। তিনি গত মাসখানেক ধরে লিভার সিরোসিস সংক্রান্ত জটিলতায় ভুগছিলেন। তার শরীর খারাপ ছিল অনেক বছর ধরে। প্রায় একযুগ আগে তার যকৃতে প্রদাহ ধরা পড়ে। ওই সময়ে প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার সার্বিক তত্ত্বাবধানে সিঙ্গাপুরে তার চিকিৎসা হয়। আমার মনে আছে, ওখানকার ডাক্তাররা তার সুস্থতা নিয়ে তেমন আশাবাদী ছিলেন না। তাদের সঙ্গে যোগাযোগ রাখছিলেন আমার আব্বা ডাঃ জহির উদ্দিন আহমেদ। ডাক্তার হিসেবে পারিবারিক চিকিৎসা সংক্রান্ত যে কোন বিষয়ে সবাই তার পরামর্শ নেন। ডাক্তাররা যখন ভাবছিলেন তার যকৃতে অস্ত্রোপচার করা হবে কিনা, তখন চাচারা আব্বার সঙ্গে পরামর্শ করেন। আব্বা তাদের অস্ত্রোপচার করতে নিষেধ করেন। আব্বাকে দেখেছি ক্যান্সারে আক্রান্ত রোগীর অস্ত্রোপচার নিয়ে সবসময় কিছুটা রক্ষণশীল ভূমিকা রাখতে। আব্বার পরামর্শে তার অন্যান্য চিকিৎসা ও অস্ত্রোপচার শেষে ঢাকায় নিয়ে আসা হয়। ডাক্তাররা তার আয়ুষ্কাল নিয়ে খুব বেশি আশাবাদী ছিলেন না। কিন্তু চাচা ঢাকায় ফেরার পর ধীরে ধীরে সুস্থ হতে থাকেন। বছর খানেকের মধ্যে তিনি প্রায় সুস্থ হয়ে যান এবং স্বাভাবিক জীবনযাপন করা শুরু করেন।
মুক্তিযোদ্ধা মহিউদ্দিন আহমেদ সেই কূটনীতিক যিনি যুক্তরাজ্যে পাকিস্তানী সরকারের অধীনে চাকরি করাকালীন সময়ে তাদের প্রতি আনুগত্য অস্বীকার করে বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্বে বাংলাদেশের স্বাধীনতা সংগ্রামে সমর্থন দিয়ে মুজিবনগর সরকারের প্রতি আনুষ্ঠানিকভাবে আনুগত্য প্রকাশ করেন। ট্রাফলগার স্কয়ারে হাজারো মানুষের সামনে তারা বাংলাদেশে পাকিস্তানের হত্যাযজ্ঞের বর্ণনা দেন এবং যুক্তরাজ্যের পাকিস্তান দূতাবাসের পাকিস্তানী পতাকা নামিয়ে বাংলাদেশের পতাকা উত্তোলন করেন। ১৯৭২ সালের ৮ জানুয়ারি বঙ্গবন্ধু পাকিস্তান থেকে মুক্তি পেয়ে লন্ডনে যান। সেখানে মহিউদ্দিন আহমেদসহ কয়েকজন কর্মকর্তা তাঁকে স্বাগত জানান। মহিউদ্দিন আহমেদ দেশ স্বাধীন হবার পর তার কূটনৈতিক জীবন অব্যাহত রাখেন বাংলাদেশের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের অধীনে। জাতিসংঘসহ অনেক সংস্থা ও বিভিন্ন দেশে তিনি বাংলাদেশের ভাবমূর্তি উজ্জ্বল করেছেন। ১৯৯১ সালে খালেদা জিয়ার সরকার ক্ষমতায় আসার পর তাকে মিথ্যা অভিযোগে চাকরিচ্যুত করা হয়। তার একমাত্র দোষ ছিল তিনি একজন মুক্তিযোদ্ধা এবং বঙ্গবন্ধুর অনুগত সহযোদ্ধা। ১৯৯৬ সালে জননেত্রী শেখ হাসিনা ক্ষমতায় ফিরলে তাকে পুনরায় চাকরিতে ফেরানো হয়। ২০০১ সালে অবসরের আগ পর্যন্ত তিনি পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে কাজ করেছিলেন।
মহিউদ্দিন আহমেদ মুক্তিযুদ্ধ ও তার সরকারী চাকরি শেষ হবার পরেও বাংলাদেশ এবং বাংলাদেশের স্বাধীনতা ও সার্বভৌমত্ব রক্ষায় কাজ করে গেছেন। পত্রিকায় নিয়মিত কলাম লিখেছেন, মুক্তিযুদ্ধ ও বাংলাদেশ নিয়ে বই লিখেছেন। নতুন প্রজন্মকে লেখার মাধ্যমে, তার স্মৃতি ভাগ করে উজ্জীবিত ও সমৃদ্ধ করেছেন। যেহেতু তিনি আমার বড় চাচা, আমরা তাকে আরও কাছ থেকে, ঘনিষ্ঠভাবে দেখার সুযোগ পেয়েছি। আব্বার ঠিক বড় হিসেবে তিনি তাকে খুবই স্নেহ করতেন। আব্বাও ছিলেন সরকারী কর্মকর্তা, স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের পরিবার পরিকল্পনা অধিদফতরের পরিচালক। দুই ভাই সরকারের নানা কর্মপন্থা, প্রশাসনিক জটিলতা ইত্যাদি নিয়ে কাজ করতেন। মহিউদ্দিন আহমেদের ভাই- এই অজুহাতে আব্বা, ডাঃ জহির উদ্দিন আহমেদকে তৎকালীন বিএনপি সরকারের স্বাস্থ্যমন্ত্রী খন্দকার মোশাররফের নির্দেশে ২০০২ সালের দিকে ঢাকার বাইরে বদলি করা হয়। পরে দাতাদের চাপে আবার ঢাকায় ফিরিয়ে আনা হয় ছয় মাস পরেই। চাচাকে ওই সময়ে খুবই বিচলিত দেখেছি। আমি যখন স্কুলে পড়ি তখন বইমেলায় গিয়ে বই কেনার জন্য মহিউদ্দিন চাচা আমাদের সব ভাইবোনদের পাঁচ শ’ টাকা করে দিতেন। ওই সময়ে অর্থাৎ নব্বইয়ের দশকের শুরুর দিকে পাঁচ শ’ টাকা অনেক। আমার মনে আছে, সবাই বই কেনার পর তিনি খুলে খুলে বই দেখছিলেন আর বই নিয়ে আলাপ করছিলেন। আমি বই কিনেছিলাম সর্বসাকল্যে সাড়ে তিন শ টাকার মতো। চাচা বলেছিলেন তুমি মাত্র পাঁচ শ’ টাকার বই কিনে শেষ করতে পারলে না?
আমার ছোট চাচা জিয়াউদ্দিন আহমেদ বাংলাদেশ ব্যাংকের টাকশালের ব্যবস্থাপনা পরিচালক থাকাকালীন সময়ে গাজীপুরের সরকারী বাসভবনে মাঝে মাঝে পারিবারিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করতেন। সেখানে নানা গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিরা আসতেন। সেখানে মাইকে করে চাচা পরিবারের সদস্যদের পরিচয় করিয়ে দিতেন। আমাকে পরিচয় করানোর সময় তিনি গর্ব করে বলতেন, ‘আমি ও আমার ভাই মুনীরের পর আমার ছোট ভাই জহিরের ছেলে এখন পত্রিকায় কলাম লেখে, টিভিতে ইন্টারভিউ দেয়।’ আমার আব্বার ঠিক ছোটজন, মুনীর উদ্দিন আহমেদ ছিলেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ফার্মেসি বিভাগের অধ্যাপক। তিনি এবং বড় চাচা মহিউদ্দিন আহমেদই মূলত পত্রিকায় অনেক লেখালেখি করতেন। অবসরে যাওয়ার পর ছোট চাচা জিয়াউদ্দিন আহমেদও এখন নিয়মিত পত্রিকায় লেখেন। কিন্তু আমার জ্যাঠা অর্থাৎ সবচেয়ে বড় চাচা শাহাব উদ্দিন আহমেদ ও আমার বাবা ডাঃ জহির উদ্দিন আহমেদ চাকরি জীবন শেষে পরিবারেই বেশি সময় দিয়েছেন, ওভাবে মিডিয়ায় সরব ছিলেন না।
মহিউদ্দিন চাচার দুই মেয়ে অরু ও লোরা। অরু আপা বহুদিন যাবত লন্ডনে আছেন। তার স্বামী রাহেল নবী হচ্ছেন বিখ্যাত চিত্রশিল্পী ও কার্টুনিস্ট রনবীর ছেলে। চাকরিসূত্রে এক সফরে লন্ডনে গেলে ২০১৫ সালে লন্ডনে খুব ভাল সময় কেটেছিল আমাদের। তারপর ঢাকায় গাজীপুরে পারিবারিক অনুষ্ঠানে আবার তাদের সঙ্গে দেখা হয় ২০১৬ সালে সম্ভবত। চাচার মৃত্যুর সময় অরু আপা ও লোরা আপা দুজনই ঢাকায় ছিলেন। অরু আপার সঙ্গে আমার নিয়মিত কথা হতো। তিনি বাবাকে নিয়ে খুবই উদ্বিগ্ন ছিলেন। ঢাকায় এসে বাবার শিয়রে বসে ল্যাপটপে কাজ করতেন। নিজের সামর্থ্যরে সবটুকু করেছেন তার চিকিৎসা ও সুস্থতার জন্য। টরেন্টোতে বসে আমার যতটা অসহায় লাগছে, জানি না তিনি কি করে এই শোক সামলে উঠবেন।
চাচা যতদূর সম্ভব গ্রামের মানুষকে সাহায্য করতেন। আমার দাদা আবদুর রশীদ মাস্টার ফেনীর পরশুরামের নুরপুর গ্রামের মানুষের মাঝে একজন দেবদূত হিসেবে পরিচিত ছিলেন। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পর দেশভাগের সময় এবং মুক্তিযুদ্ধের সময় তিনি আমাদের গ্রামের হিন্দু পরিবারগুলোর নিরাপত্তার জন্য সর্বদা সতর্ক থাকতেন, তাদের আশ্রয় দিতেন। মহিউদ্দিন আহমেদ ছিলেন তার যোগ্য উত্তরসূরি। বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলার প্রতি জীবনের শেষ মুহূর্ত পর্যন্ত অনুগত ছিলেন। দেশের মানুষের স্বাধীনতা ও অধিকার রক্ষায় মৃত্যুর আগ পর্যন্ত সোচ্চার ছিলেন। কখনও দুর্নীতির কাছে মাথা নত করেননি তার বাবা ও অন্যান্য ভাইদের মতোই।
বীর মুক্তিযোদ্ধা ও সাবেক পররাষ্ট্র সচিব, আমার বড় চাচা মহিউদ্দিন আহমেদের এই অকাল প্রয়াণ দেশের জন্য এক অনন্য ক্ষতি। প্রবাসী কর্মকর্তা হিসেবে মুক্তিযুদ্ধে তার অবদান প্রবাসী বাংলাদেশীদের জন্য অনুকরণীয়। আজকে এই কলামটি লেখার সময় তাই আমি অত্যন্ত মর্মাহত ও শোকাহত। বাংলাদেশের সোনার সন্তানরা সবাই চলে যাচ্ছেন একে একে। টরেন্টোর আকাশও তাই মেঘাচ্ছন্ন, আমার মনের মতোই।
২০ জুন ২০২২
টরেন্টো, কানাডা

The Daily Janakantha website developed by BIKIRAN.COM

Source: জনকন্ঠ

সম্পর্কিত সংবাদ
’৫৭ সালের মধ্যেই পদ্মা সেতুর অর্থ উঠে আসবে

’৫৭ সালের মধ্যেই পদ্মা সেতুর অর্থ উঠে আসবে প্রথম পাতা 27 Jun 2022 27 Jun 2022 Daily Janakantha সংসদ রিপোর্টার Read more

অনিয়ম চলবে না ॥ পদ্মা সেতুর নিরাপত্তায় কঠোর অবস্থান

অনিয়ম চলবে না ॥ পদ্মা সেতুর নিরাপত্তায় কঠোর অবস্থান প্রথম পাতা 27 Jun 2022 27 Jun 2022 Daily Janakantha জনকণ্ঠ Read more

পদ্মা সেতুর এ্যাপ্রোচ সড়কে পেঁয়াজ ভর্তি ট্রাক উল্টে আহত ৪

পদ্মা সেতুর এ্যাপ্রোচ সড়কে পেঁয়াজ ভর্তি ট্রাক উল্টে আহত ৪ প্রথম পাতা 27 Jun 2022 27 Jun 2022 Daily Janakantha Read more

পঞ্চম শ্রেণির পড়াশোনা

পঞ্চম শ্রেণির পড়াশোনা শিক্ষা সাগর 28 Jun 2022 28 Jun 2022 Daily Janakantha সহকারী শিক্ষক কড়ই সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় আদমদীঘি, Read more

হোল্ডিংকে ছাড়িয়ে কেমার রোচ

হোল্ডিংকে ছাড়িয়ে কেমার রোচ খেলার খবর 28 Jun 2022 28 Jun 2022 Daily Janakantha স্পোর্টস রিপোর্টার ॥ বাংলাদেশ তার প্রিয় Read more

মোহামেডানের কাছে হার শেখ জামালের

মোহামেডানের কাছে হার শেখ জামালের খেলার খবর 28 Jun 2022 28 Jun 2022 Daily Janakantha স্পোর্টস রিপোর্টার ॥ বাংলাদেশ প্রিমিয়ার Read more

আমরা নিরপেক্ষ নই ,    জনতার পক্ষে - অন্যায়ের বিপক্ষে ।    গণমাধ্যমের এ সংগ্রামে -    প্রকাশ্যে বলি ও লিখি ।   

NewsClub.in আমাদের ভারতীয় সহযোগী মাধ্যমটি দেখুন