By: Daily Janakantha

ভালবাসার নদী

প্রথম পাতা

19 Jun 2022
19 Jun 2022

Daily Janakantha

মোরসালিন মিজান ॥ বাবারা আসলেই বড় অদ্ভুত হন। বাইরে থেকে দেখলে তারা সাধারণত কঠিন স্বভাবের। চোয়াল শক্ত করে রাখেন। বাবাদের কাঁদতে নেই। অত সহজে হাসেনও না। বাবার সঙ্গে কথা বলার সময় সন্তানকে সতর্ক থাকতে হয়। অথচ চারপাশে দেয়াল তুলে রাখা এ বাবার ভেতরেই প্রবাহিত হয় ভালবাসার নদী। সন্তানের জন্য খুব নীরবে এ নদী বাঁচিয়ে রাখেন তিনি। সন্তানও বাবার ভেতরের রূপ বুঝতে তেমন সময় নেয় না। বাবা হয়ে ওঠেন তাদের শেষ আশ্রয়। মাথার ওপরের ছাতা। বটবৃক্ষ।
এখন এই ফেসবুক ইনস্টাগ্রামের যুগে ‘ফ্যান’, ‘ফলোয়ার’ সংখ্যা নিয়ে কত না হৈ চৈ। তবে সন্তান সব সময়ই বাবার ফ্যান হয়। ফলোয়ার হয়। তার চেয়ে ব্যক্তিত্ববান তার চেয়ে সুপুরুষ আর হয় না। তার মতো করে চুল আঁচড়ানো, তাঁর মতো জুতো জামা পরে সকাল সকাল অফিস যাওয়ার জন্য বায়না ধরা- শৈশবের এমন আরও কত শত স্মৃতি নিয়ে বড় হয় পুত্র সন্তান! আর কন্যা সন্তানের সঙ্গে বাবার যে দারুণ মিষ্টি এক সম্পর্ক গড়ে, তার তো কোন তুলনাই হয় না। আজকের বদলে যাওয়া দিনে অনেক বাবাই সন্তানের বন্ধু হয়ে উঠছেন।
এক জীবনে কত রকমের নায়ক বা হিরো কল্পনা করি আমরা। কিন্তু হিরো তো অনেক হয়। সুপার হিরো একজনই, তিনি বাবা। আজ সেই সুপার হিরোকে আলাদাভাবে স্মরণ করার দিন। বিশ্ব বাবা দিবস আজ। প্রতিবছর জুন মাসের তৃতীয় রবিবার পৃথিবীর দেশে দেশে বাবা দিবস উদ্যাপন করা হয়। সে অনুযায়ী, আজ ১৯ জুন রবিবার বাংলাদেশেও দিবসটি উদ্যাপিত হবে। তাকে ঘিরে আনন্দ উৎসবে মাতবে সন্তানরা।
পিতা তার সন্তানের জনক। তার ঔরসেই জন্ম নেয় সন্তান। সন্তানের প্রতি বাবার যেমন পক্ষপাত, তেমনি বাবার প্রতিও সীমাহীন দুর্বল থাকতে দেখা যায় ছেলে মেয়েদের। সন্তানের কাছে বাবা পৃথিবীর শ্রেষ্ঠ পাওয়া। সন্তানের আবদার অধিকাংশ ক্ষেত্রেই থাকে মায়ের কাছে। ‘এটা চাই।’ ‘ওটা দাও।’ মা এই সমস্ত আবেদন নিবেদন সময় সুযোগ মতো পৌঁছে দেন বাবার কাছেই। সন্তানের বর্তমান চাওয়া ও ভবিষ্যত স্বাচ্ছন্দ্যের কথা ভেবে বাবা দিন-রাত পরিশ্রম করেন। তিনি নিজে ভাল খেয়ে তৃপ্ত হন না। নতুন জামা গায়ে দিয়ে সুখী হন না। সন্তানের সুখই বাবার সুখ।
বাবা ভেঙ্গে পড়েন না কখনও। তার কাঁদতে মানা। কারণ বাবা কাঁদলে, বাবা ভেঙ্গে পড়লে সন্তানের আর আশা থাকে না। ‘ঝিনুক নীরবে সহো/ঝিনুক নীরবে সহো,/ঝিনুক নীরবে সহে যাও/ভিতরে বিষের বালি, মুখ বুঁজে মুক্তা ফলাও!’ কবি আবুল হাসানের সেই ঝিনুকই যেন বাবা। সব কষ্ট একা বুকে বয়ে বেড়ান। সন্তানকে বুঝতে দেন না।
বিশ্ববিখ্যাত চলচ্চিত্র ‘লাইফ ইজ বিউটিফুল’র কথাই যদি বলি, দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের প্রেক্ষাপটে নির্মিত ছবিতে আমরা খুঁজে পাই অসাধারণ এক বাবাকে। জার্মান সেনারা শিশুপুত্রসহ পিতাকে কনসেন্ট্রেশন ক্যাম্পে নিয়ে যায়। সেখানে বাবার ওপর চলে অবর্ণনীয় নির্যাতন। কিন্তু ভয়ঙ্কর পরিস্থিতি ছেলেকে এতটুকু আঁচ করতে দেন না তিনি। বরং ছেলের খুশি ধরে রাখতে উল্টো ব্যাখ্যা দিয়ে বলেন, এখানে একটি খেলা চলছে। যে বেশি পয়েন্ট পাবে তাকে সত্যিকারের একটি ট্যাঙ্ক উপহার দেয়া হবে। বাবা ছেলেকে বোঝান, সে যদি বারবার মায়ের কাছে যাওয়ার জেদ ধরে, খিদে পেলে খাবারের জন্য কান্না করে, আর ঘরে লক্ষ্মী ছেলের মতো লুকিয়ে না থাকে তাহলে পয়েন্ট কাটা যাবে। শিশুপুত্র পয়েন্ট হারাতে চায় না। সে বাবার সব কথা মেনে চলে। অথচ বাবা জানেন, জার্মান সেনারা তাকে হত্যা করতে নিয়ে যাচ্ছে। হত্যার শিকার হন বাবা। কিন্তু সন্তান তা বুঝতে পারে না। এভাবে জীবনের শেষ মুহূর্ত পর্যন্ত সন্তানকে শঙ্কা মুক্ত রাখার চেষ্টা করেন বাবা।
স্নেহবৎসল পিতা সম্রাট বাবরের কথাও কারও অজানা নয়। পুত্র হুমায়ুন অসুস্থ। কোন চিকিৎসাতেই কাজ হচ্ছে না। জীবনের শঙ্কা দিন দিন বেড়ে চলেছে। কিংবদন্তি আছে, এ অবস্থায় অসহায় পিতা সৃষ্টিকর্তার কাছে নিজের জীবনের বিনিময়ে পুত্রের জীবন ভিক্ষা চাইলেন। বিস্ময়কর হলেও সত্য, এর কিছুদিন পরই হুমায়ুন ধীরে ধীরে সুস্থ হয়ে উঠতে লাগলেন। আর সম্রাট বাবর অসুস্থ হয়ে বিছানা নিলেন। অচিরেই মৃত্যু হলো তার। কবির ভাষায়: মরিয়া বাবর অমর হইয়াছে, নাহি তার কোনও ক্ষয়,/পিতৃস্নেহের কাছে হইয়াছে মরণের পরাজয়…।
আজও পৃথিবীর অসংখ্য বাবা সন্তানের জন্য জীবন উৎসর্গ করে চলেছেন। তাদের ঋণ কোন সন্তানের পক্ষে শোধ করা সম্ভব নয়। ফাদার্স ডে জন্মদাতা পিতার কথা আলাদা করে স্মরণ করার সুযোগ করে দেয় শুধু। দেশে এক সময় দিবসটির কথা অনেকে জানতেন না। এখন ভীষণ জনপ্রিয়। আবেগঘন উদ্যাপন চোখে পড়ে। আজও তা-ই হবে। প্রিয় পিতার হাতে সন্তানরা আজ ফুল তুলে দেবে। দারুণ কোন উপহার দিয়ে চমকে দেয়ার চেষ্টা করবে। বাবাকে সঙ্গে নিয়ে কেক কাটার রীতিও প্রচলিত আছে। কেউ আজ মুখ ফুটে বলবে, ‘ভালবাসি, বাবা।’ কেউ বলবে মনে মনে। আর যারা এরই মাঝে পিতাকে হারিয়েছেন, তাদের তো দুঃখের সীমা নেই। হয়তো ভেজা চোখেই কাটাবে গোটা দিন।
অবশ্য দিবস উদ্যাপন বেশি দৃশ্যমান হয় সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম। বাবা হয়তো আজ জানবেনও না, ফেসবুকে টুইটারে সন্তান কত আবেগী ভাষায় তার কথা লিখেছে, কত আদরে ভালবাসায় স্মরণ করছে তাকে। আর যারা নিজেরাও বাবা হয়েছেন তারা ফিরে যাবেন শৈশবে। পুরনো স্মৃতি হাতড়ে বাবাকে আবিষ্কারের চেষ্টা করবেন। ‘বাবা কতদিন কতদিন দেখি না তোমায়…।’ এই দেখা আর হবে না। নিজের শিশু সন্তানকে বুকে জাপ্টে ধরে কষ্ট ভোলার চেষ্টা করবেন তারা।
১৯০৮ সালের ৫ জুলাই আমেরিকার পশ্চিম ভার্জিনিয়ার ফেয়ারমন্টের এক গির্জায় সর্বপ্রথম বাবা দিবস উদ্যাপিত হয়। পাশাপাশি সনোরা স্মার্ট ডড নামের ওয়াশিংটনের এক ভদ্র মহিলার মাথাতেও বাবা দিবসের চিন্তা আসে। ১৯০৯ সালে ভার্জিনিয়ার বাবা দিবসের কথা তিনি জানতেন না। ডড এই ধারণা পান গির্জার এক পুরোহিতের বক্তব্য থেকে। সেই পুরোহিত মাকে নিয়ে অনেক ভাল ভাল কথা বলছিলেন। তখনই তার মনে হয়, বাবাদের নিয়েও কিছু করা দরকার। পরে তিনি সম্পূর্ণ নিজ উদ্যোগেই পরের বছর ১৯১০ সালের ১৯ জুন থেকে বাবা দিবস উদ্যাপন শুরু করেন। কালক্রমে এসেছে বাংলাদেশেও। বর্তমানে এ দেশেও দিবসটি ভীষণ জনপ্রিয়।
হুমায়ূন আহমদ লিখেছিলেন, ‘পৃথিবীতে খারাপ মানুষ অনেক হয়। খারাপ বাবা একটিও হয় না।’ হয় না বলেই তিনি ‘বাবা।’

The Daily Janakantha website developed by BIKIRAN.COM

Source: জনকন্ঠ

সম্পর্কিত সংবাদ
সেতুর চেয়েও বড়

সেতুর চেয়েও বড় প্রথম পাতা 24 Jun 2022 24 Jun 2022 Daily Janakantha বিশ্বের কোন প্রকল্প নিয়ে এত আলোচনা হয়নি। Read more

বানভাসিদের নিয়ে ফকির শাহাবুদ্দিনের গান

বানভাসিদের নিয়ে ফকির শাহাবুদ্দিনের গান সংস্কৃতি অঙ্গন 25 Jun 2022 25 Jun 2022 Daily Janakantha সংস্কৃতি প্রতিবেদক ॥ বানভাসিদের নিয়ে Read more

পদ্মা সেতুর টোল দিলেন শেখ হাসিনা

পদ্মা সেতুর টোল দিলেন শেখ হাসিনা জাতীয় 25 Jun 2022 25 Jun 2022 Daily Janakantha অনলাইন ডেস্ক ॥ প্রধানমন্ত্রী শেখ Read more

স্বগর্বে ফিরলেন সেই আবুল হোসেন

স্বগর্বে ফিরলেন সেই আবুল হোসেন জাতীয় 25 Jun 2022 25 Jun 2022 Daily Janakantha অনলাইন ডেস্ক ॥ পদ্মা সেতুর উদ্বোধন Read more

আন্তর্জাতিক ফিল্ম ফেস্টিভ্যালে ‘ছিটমহল’

আন্তর্জাতিক ফিল্ম ফেস্টিভ্যালে ‘ছিটমহল’ সংস্কৃতি অঙ্গন 25 Jun 2022 25 Jun 2022 Daily Janakantha সংস্কৃতি ডেস্ক ॥ উপমহাদেশের ৬৮ বছরের Read more

খুলল পদ্মার দ্বার, উদ্বোধন করলেন প্রধানমন্ত্রী

খুলল পদ্মার দ্বার, উদ্বোধন করলেন প্রধানমন্ত্রী জাতীয় 25 Jun 2022 25 Jun 2022 Daily Janakantha অনলাইন ডেস্ক ॥ স্বপ্ন পুরণের Read more

আমরা নিরপেক্ষ নই ,    জনতার পক্ষে - অন্যায়ের বিপক্ষে ।    গণমাধ্যমের এ সংগ্রামে -    প্রকাশ্যে বলি ও লিখি ।   

NewsClub.in আমাদের ভারতীয় সহযোগী মাধ্যমটি দেখুন