By: Daily Janakantha

সীতাকুণ্ড অগ্নিকাণ্ড ও সংশ্লিষ্টদের দায়

চতুরঙ্গ

16 Jun 2022
16 Jun 2022

Daily Janakantha

বাংলাদেশে বৈদেশিক মুদ্রার একটি বিরাট অংশ গার্মেন্টস শিল্প থেকে আসে। গার্মেন্টস শিল্প বাংলাদেশের অর্থনীতিতে বিরাট পরিবর্তন আনয়ন করেছে এবং ভবিষ্যতে বাংলাদেশে গার্মেন্টস শিল্পের ভবিষ্যতও শক্তিশালী। কেননা, বাংলাদেশে গার্মেন্টস শিল্পে ব্যবহৃত শ্রম যত সহজে এবং সুলভ মূল্যে পাওয়া যায় তা পৃথিবীর অন্য কোথাও পাওয়া দুষ্কর। এ কারণেই বাংলাদেশে গার্মেন্টস শিল্পের ব্যাপক প্রচার ও প্রসার ঘটেছে। কাজেই গার্মেন্টস শিল্পকে কদর করতে হবে। গার্মেন্টস শিল্প সংশ্লিষ্ট সকলের পরিকল্পিত ভবিষ্যত নিশ্চিতকল্পে নিরলস কাজ করে যেতে হবে। বাংলাদেশে অসংখ্য গার্মেন্টস রয়েছে, সেগুলোর মধ্যে মাত্র কয়েকটির আন্তর্জাতিক সনদ রয়েছে। একটি প্রতিষ্ঠানের আন্তর্জাতিক মান নিশ্চিত করেই প্রতিষ্ঠানটি সচল রাখা প্রয়োজন । বিধিতে রয়েছে প্রত্যেক গার্মেন্টস শিল্পে একজন পরিবেশবিদ রাখা জরুরী। বাংলাদেশে খুব কম সংখ্যক গার্মেন্টস রয়েছে যাদের কারখানায় পরিবেশবিদ রয়েছেন। সঙ্গে সঙ্গে এটিও উল্লেখ করা যায়, যত্রতত্র বর্জ্যরে অপরিকল্পিত নিক্ষেপ পরিবেশকে ক্রমশ বিষাক্ত ও দূষিত করে তুলছে।
সীতাকুণ্ডের দুর্ঘটনাটি মূলত কেমিক্যালপণ্য থেকে সংঘটিত হয়েছে এবং তথ্যের ঘাটতি থাকায় উদ্ধারকর্মীরা সঠিকভাবে অভিযান চালাতে ব্যর্থ হয়। ইয়ার্ডসমূহে দীর্ঘদিনের স্তূপাকারে সজ্জিত কন্টেনারে কোন্টায় কি আছে সেটির বিষয়ে মালিকপক্ষের উদাসীনতা চরমভাবে লক্ষণীয়। তাদের মধ্যে এক ধরনের গাফিলতির ভাবও লক্ষণীয়। মালিকপক্ষ এসব নিয়ে তেমন খোঁজখবরও রাখেন না। কেননা, অগ্নিকাণ্ডের কয়েকদিন পরেও মালিকপক্ষের দায়িত্ব ও চেতনাবোধ তেমন একটা দেখা যায়নি। মালিকপক্ষ সচেতন হলে হতাহতের সংখ্যা কিছুটা হলেও কমে আসত। দায়িত্বে অবহেলার কারণেই হতাহতের সংখ্যা সীমার বাইরে চলে যায় এবং দুর্ঘটনাটি সকল পক্ষের এজেন্টকে নতুন করে ভাবতে শেখাবে, নতুন পরিকল্পনা প্রণয়নে ভেবে-চিন্তে সিদ্ধান্ত গ্রহণে সহায়ক হবে। এদিকে আমদানি ও রফতানিকারক এবং সিএ্যান্ডএফের পক্ষ থেকে দাবি তোলা হয়েছে, আমদানি, খালাসকরণ ও জব্দ হওয়া কেমিক্যালপণ্যের নিষ্পত্তিকরণ প্রক্রিয়া সহজীকরণ করতে হবে। কেননা, এ সংক্রান্তে জটিল পরিস্থিতির উদ্ভব হওয়ায় মালিকপক্ষ এবং এর সঙ্গে ওতপ্রোতভাবে জড়িতদের বৈরী পরিস্থিতির মুখোমুখি হতে হয়।
অন্যদিকে হতাহতের শেষে সংশ্লিষ্ট নানান কর্তৃপক্ষ যখন মামলা দায়ের করে সেখানে দেখা যায়, যে শ্রমিকটি শেষ পর্যন্ত লড়াই করে ডিপোকে সুরক্ষার জন্য কাজ করে গেছেন তার নামেও মামলা দায়ের করা হয়েছে। এ বিষয়টি অত্যন্ত গর্হিত এবং দুঃখজনক। মালিক-শ্রমিকের সম্পর্ক শোভনীয় ও হৃদ্যতার হওয়া বাঞ্ছনীয়। কেননা, শ্রমিক তার শরীরের শেষ রক্তবিন্দু দিয়ে মালিকের সম্পদকে রক্ষার প্রচেষ্টায় বদ্ধপরিকর থাকেন। সেক্ষেত্রে মালিকেরও শ্রমিকের প্রতি আন্তরিক ও মর্যাদাশীল হওয়া জরুরী। অবশ্য কোন কোন মালিককে দেখা যায়, শ্রমিকদের মূল কোম্পানির শেয়ার দিয়ে থাকেন। অর্থাৎ কোম্পানির লাভের একটি অংশ সব শ্রমিকই পেয়ে থাকেন। যদিও এ ধরনের উদাহরণ বাংলাদেশে বিরল, তথাপি আছে। আমরা আহত শ্রমিকের বিরুদ্ধে মামলার তীব্র বিরোধিতা জ্ঞাপন করি। এ ধরনের নজির সৃষ্টি হলে শ্রমিকরা কোম্পানির প্রতি উদাসীন হয়ে পড়বেন এবং দায় মোচনের সংস্কৃতিতে নিমজ্জিত হয়ে পড়বে, যেটি কোম্পানির জন্য কখনই সুখকর হবে না।
চৌকস নিরাপত্তাকর্মীর অভাবেও হতাহতের সংখ্যা বেড়েছে। প্রশ্ন উঠতে পারে, চৌকস নিরাপত্তাকর্মী কেন কোম্পানিগুলো নিয়োগ দেয় না? উত্তরে বলা হবে, চৌকস নিরাপত্তারক্ষীর সংখ্যা বাংলাদেশে বাস্তবে কম। চৌকস নিরাপত্তাকর্মী তৈরি করার বিষয়ে সংশ্লিষ্টদের ব্যাপক উদাসীনতা রয়েছে। শুধু তাই নয়, চৌকস নিরাপত্তাকর্মীর পিছনে যে অর্থ খরচ করতে হয় সেটি দিয়ে অপরিপক্ব কয়েকজনকে নিয়োগ দেয়া যায়। সীতাকু-ের ডিপোতে দেখেছি কেচি গেট তালাবদ্ধ করে পালিয়ে গেছে নিরাপত্তাকর্মী। অথচ দুর্ঘটনার সময় যদি কেচি গেট খোলা থাকত তাহলে হয়তবা অনেক শ্রমিকই দুর্ঘটনাকবলিত হওয়া থেকে বেঁচে যেতেন। কাজেই মালিকপক্ষকে এটির দায় গ্রহণ করতে হবে এবং আহত যে শ্রমিকের বিরুদ্ধে মামলা করা হয়েছে সেটি প্রত্যাহারও করতে হবে।
চট্টগ্রাম কাস্টম হাউস ও নিলাম ব্যবসায়ী কল্যাণ সমিতির পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, কেমিক্যাল বা দাহ্য পদার্থ নিলামের জন্য তোলা হলে বেশ জটিলতার সম্মুখীন হতে হয়। জটিলতার কারণেই দাহ্য পদার্থ দীর্ঘদিন ডিপোতে পড়ে থাকলেও সেটি সরাতে পারছে না ব্যবসায়ীরা। উল্লেখ্য, সীতাকু-ের ডিপোতে অগ্নিকা-ের ঘটনার পর চট্টগ্রাম বন্দরে দাহ্য পদার্থ নিলামে তোলার জন্য বিভিন্ন মহল থেকে বলা হয়। অন্যদিকে ব্যবসায়ীরা বলেছেন, তারা যে সকল পণ্য আমদানি করেন তার সকল কিছুরই বৈধ লাইসেন্স রয়েছে। কিন্তু কেমিক্যালপণ্য নিলাম থেকে কেনার জন্যও লাইসেন্স থাকার বাধ্যবাধকতা রয়েছে। সেক্ষেত্রে নিলামে কেমিক্যালপণ্য তোলা হলেও অনেক সময়ই অবিক্রীত থেকে যায়।
দৈনিক জনকণ্ঠে প্রকাশিত সংবাদে জানা যায়, কেমিক্যালবোঝাই ২৬৫ কন্টেনারের তালিকা চট্টগ্রাম কাস্টম হাউস থেকে দেয়া হয়েছে বহু আগে। প্রতিমাসে এ বিষয়ে কার্যাদি নিষ্পত্তি করার জন্য সংশ্লিষ্টদের তাগাদা প্রদান করা হলেও সুরাহা করছে না প্রতিষ্ঠানগুলো। এসব কন্টেনারে থাকা কেমিক্যাল সামগ্রী নিলামে তোলা কিংবা ধ্বংস করার জন্য অনুরোধ করা হলেও কাজ হচ্ছে না। জানা যায়, সর্বোচ্চ আটাশ এবং সর্বনিম্ন দুই বছর আগে আমদানি করা কেমিক্যালপণ্য সংশ্লিষ্ট আমদানিকারকগণ ছাড় না করায় এ পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়েছে। অর্থাৎ, চট্টগ্রাম বন্দরও হুমকির মুখে। যে কোন সময় যে কোন পরিস্থিতির সৃষ্টি হতে পারে। শুধু তাই নয়, সীতাকু- বিস্ফোরণের পর পালাক্রমে বিভিন্ন জায়গায় বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটে চলেছে। এদিকে সরকারের পক্ষ থেকে বলা হচ্ছে পদ্মা সেতু উদ্বোধনের টার্গেট হিসেবে একটি পক্ষ ষড়যন্ত্র করে যাচ্ছে। এটি তাদের প্রক্রিয়ারও একটি অংশ হতে পারে। এ বিষয়ে সকলকে সোচ্চার থাকতে হবে এবং অনাকাক্সিক্ষত পরিস্থিতি উত্তরণে বিভিন্ন ধরনের ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে।
সদিচ্ছা যে সংশ্লিষ্টদের নেই সেটি স্পষ্ট করে বলা যাবে না। অনেকেই চায় নিয়মের মধ্যে থেকে ব্যবসা পরিচালনা করতে। কিন্তু সুযোগের অভাবে এ বিষয়টি অনেকটা অগোচরেই থেকে যায়। অনিয়ম করে ব্যবসা পরিচালনা করতে কতিপয় ব্যবসায়ীর ইচ্ছে থাকে। এ সুযোগে তাদের চিহ্নিত করতে হবে। কেননা, বিষয়গুলোর সঙ্গে জাতীয় ও আন্তর্জাতিক স্বার্থ জড়িত। ইতোমধ্যে সিঙ্গাপুর একটি নেতিবাচক ইঙ্গিত প্রদান করেছে সংশ্লিষ্ট বিষয়ে। কাজেই বাংলাদেশ যেখানে উন্নয়ন-অগ্রগতির ধারায় ক্রমাগত অগ্রসরমান, সেখানে বিস্ফোরিত ডিপোর ন্যায় অনাকাক্সিক্ষত ঘটনা দেশের ভাবমূর্তিকে প্রশ্নের মুখে ফেলে দিচ্ছে।
সুতরাং কার্যকর আইন প্রণয়ন ও এর বাস্তবায়ন ঘটাতে হবে। ঘটনার পরবর্তীতে দেখা যায় ক্ষতিগ্রস্তদের সাহায্যার্থে সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠান, সরকারী প্রতিষ্ঠান, বেসরকারী প্রতিষ্ঠান ও ব্যক্তি পর্যায় থেকে অনুদান প্রদানের ঘোষণা প্রদান করা হয়। এ পর্যন্ত ঠিকই আছে। কিন্ত যাদের জন্য সাহায্য ঘোষণা করা হয় তারা কি আদৌ সাহায্য পেয়েছে, সে বিষয়ে তদারকির ঘাটতি রয়েছে। রানা প্লাজার ঘটনাটি অন্তত তাই প্রমাণ করে। সীতকু-ের ঘটনার পর রানা প্লাজার ঘটনার পুনরাবৃত্তি যেন না ঘটে সে বিষয়েও অনেককে লিখতে দেখেছি। তাদের ভাষ্য হচ্ছে, যাদের জন্য সাহায্য ঘোষণা করা হয়েছে তাদের অনেকেই এখনও সাহায্য সুবিধা পায়নি। কাজেই বোঝা যাচ্ছে নাম ফোটানো কিংবা লোক দেখানো ঘোষণা বন্ধ করা উচিত এবং এক্ষেত্রে একটি শক্তিশালী নিরপেক্ষ কমিটি গঠন করা যেতে পারে। বিশেষ করে যারা সাহায্য ঘোষণা করেছেন এবং যাদের জন্য করেছেন তাদের তালিকা প্রণয়ন করে জরুরীভিত্তিতে তা প্রদানের বিষয়টি সুনিশ্চিত করা দরকার।
শ্রমিকদের ক্ষেত্রে খধনড়ৎ ষধি আইনটি যথাযথভাবে মানতে হবে। বাংলাদেশ যখন উন্নয়নশীল দেশের কাতারে সমাসীন হতে যাচ্ছে তখনও দাবি-দাওয়া আদায়ের সপক্ষে অনেক প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তা কর্মচারীদের আন্দোলন করতে হচ্ছে। বিষয়টি দুঃখের এবং নিন্দনীয়। কাজেই শ্রম আইন বাস্তবায়ন করতে হবে। এটি বাস্তবায়নের জন্য বাধা-বিপত্তি আসতেই পারে। এক্ষেত্রে জিরো টলারেন্স নীতি অনুসরণ করতে হবে। ক্ষতিগ্রস্তদের অনুদানে নিশ্চয়তা প্রদানে বিশেষ কমিশন গঠন করা যেতে পারে। তবে প্রত্যেক ক্ষেত্রেই প্রয়োজন নজরদারি কঠোর। রাজনৈতিক তত্ত্বে সকলকেই সমানভাবে মূল্যায়নের নিমিত্তে রাষ্ট্র পরিচালনা নীতি গ্রহণ প্রয়োজন। তাহলেই সুশাসন ও সুনীতি প্রণয়নের মাধ্যমে বিশৃঙ্খলা ও অনিয়ম রাষ্ট্র থেকে বিতাড়িত করা সম্ভব হবে। কার্যত নীতি প্রণয়নের মাধ্যমেই সীতাকুণ্ডে কন্টেনার ডিপোর অগ্নিকাণ্ডের পুনরাবৃত্তি রোধ করা যেতে পারে।

লেখক : সহকারী অধ্যাপক ও সভাপতি, ক্রিমিনোলজি এ্যান্ড পুলিশ সায়েন্স বিভাগ,
চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়

The Daily Janakantha website developed by BIKIRAN.COM

Source: জনকন্ঠ

সম্পর্কিত সংবাদ
গুজরাট দাঙ্গায় মোদির ভূমিকা নিয়ে সরব মানাধিকার কর্মী গ্রেপ্তার

ভারতের গুজরাট দাঙ্গায় রাজ্যের তৎকালীন মুখ্যমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির অব্যাহতিকে চ্যালেঞ্জ করে সুপ্রিম কোর্টে যাওয়া মানবাধিকার কর্মী তিস্তা সেতালভাদকে গ্রেপ্তার করেছে Read more

বাঁধভাঙ্গা উচ্ছ্বাস ॥ স্বপ্নের পদ্মা সেতু পাড়ি দিতে ঢল

বাঁধভাঙ্গা উচ্ছ্বাস ॥ স্বপ্নের পদ্মা সেতু পাড়ি দিতে ঢল প্রথম পাতা 26 Jun 2022 26 Jun 2022 Daily Janakantha জনকণ্ঠ Read more

দেশকে সমৃদ্ধির পথে এগিয়ে নিতে তৈরি হও

দেশকে সমৃদ্ধির পথে এগিয়ে নিতে তৈরি হও প্রথম পাতা 26 Jun 2022 26 Jun 2022 Daily Janakantha বিশেষ প্রতিনিধি ॥ Read more

আঁকাআঁকির আশ্রয়ে কর্মশালা, ছবির টাকায় বাঁচবে জীবন

আঁকাআঁকির আশ্রয়ে কর্মশালা, ছবির টাকায় বাঁচবে জীবন শেষের পাতা 26 Jun 2022 26 Jun 2022 Daily Janakantha মনোয়ার হোসেন ॥ Read more

২৪ ঘণ্টার মধ্যে কোরবানির পশুর বর্জ্য অপসারণের নির্দেশ 

আসন্ন ঈদুল আজহায় কোরবানির পশুর বর্জ্য ২৪ ঘণ্টার মধ্যে অপসারণ এবং কোরবানির স্থান পরিষ্কার করার জন্য সকল সিটি কর্পোরেশন এবং Read more

তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি -শ্রেণি : সপ্তম -অধ্যায় : প্রথম (প্রাত্যহিক জীবনে আইসিটি)

তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি -শ্রেণি : সপ্তম -অধ্যায় : প্রথম (প্রাত্যহিক জীবনে আইসিটি) শিক্ষা সাগর 27 Jun 2022 27 Jun Read more

আমরা নিরপেক্ষ নই ,    জনতার পক্ষে - অন্যায়ের বিপক্ষে ।    গণমাধ্যমের এ সংগ্রামে -    প্রকাশ্যে বলি ও লিখি ।   

NewsClub.in আমাদের ভারতীয় সহযোগী মাধ্যমটি দেখুন