By: Daily Janakantha

জীবন যেখানে যেমন

চতুরঙ্গ

16 Jun 2022
16 Jun 2022

Daily Janakantha

সুইডেন, নরওয়ে, ডেনমার্ক- এই তিনটি দেশকে বলা হয় ‘স্ক্যান্ডিনেভিয়ান কান্ট্রি’। প্রতিবেশী ফিনল্যান্ড ও আইসল্যান্ডকে যুক্ত করে এই ৫টি দেশকে বলা হয় নর্ডিক কান্ট্রি। এই পাঁচটি দেশের মোট আয়তন ৬,১৮৭,০০০ বর্গ কিলোমিটার (২,৩৮৯,০০০ বর্গ মাইল)। এদের নিজেদের মধ্যে রয়েছে পারস্পরিক সৌহার্দ্রপূর্ণ ভ্রাতৃত্বের সম্পর্ক। সেই নিরিখে ইন্টার পার্লামেন্টারি নর্ডিক কো-অপারেশনের লক্ষ্য নিয়ে ১৯৫২ সালে এই পাঁচটি দেশের মধ্যে গঠিত হয়েছে ‘নর্ডিক কাউন্সিল’ নামের একটি প্রতিষ্ঠান। এর সদস্য ৮৭ জন। সদর দফতর কোপেন হেগেনে। এর অফিসিয়াল ভাষা ফিনিশ, ডেনিশ ও আইসল্যান্ডিয়া।
বিশ্বের অন্যতম সুখী ও পরম শান্তিপূর্ণ এই পাঁচটি কল্যাণ রাষ্ট্রের একটি হলো সুইডেন। এদেশে আমার আগমন ১৯৮৯ সালে। তখন থেকে বিশেষ করে এখানকার এবং বাংলাদেশের মানুষের জীবনযাত্রার মান, দ্রব্যমূল্যের বাজার পরিস্থিতির তুলনামূলক হালচাল বিশ্লেষণ করতে গিয়ে দীর্ঘদিন যাবত যে অদ্ভুত এক রহস্যের চিত্র দেখে আসছিলাম, তা বাংলাদেশের ক্ষেত্রে প্রশ্নবিদ্ধ ও বোধগম্য হলেও সুইডেন বা আলোচিত এই পাঁচটি দেশের মানুষের সরল রেখায় গতিশীল জীবনযাত্রার মান, দ্রব্যমূল্যের বাজার ব্যবস্থাপনার হালচাল কখনই কোন প্রশ্নের অবকাশ তৈরি করেনি। জীবন ও সমাজ এখানে নদীর স্বাভাবিক গতির মতোই প্রবহমান।
সেই নব্বই দশকের শুরুতে সুইডিশ মুদ্রা ‘ক্রোনার’-এর মূল্যমান ছিল বাংলাদেশী টাকায় গড়ে পাঁচ গুণ বেশি। অর্থাৎ এক ক্রোনারের বিনিময়ে পাওয়া যেত মুদ্রাহারের তারতম্য অনুযায়ী কমবেশি পাঁচ টাকা। রেস্টুরেন্ট কর্মচারী বা স্বাস্থ্যসম্মত প্রক্রিয়ার ক্লিনিং জব প্রকৃতির সাধারণ মানের চাকরিজীবীর সর্বনিম্ন মাসিক বেতনের পরিমাণ ছিল বাধ্যতামূলক ৩০% ট্যাক্স বাদে ৮ থেকে ১০ হাজার ক্রোনার। এই আয় দিয়ে একজন সিঙ্গেল মানুষের জীবনযাপন খুব স্বাচ্ছন্দ্যময় না হলেও সঙ্কটের বিড়ম্বনা ছিল না। তবে একজনের আয় দিয়ে পরিবারের ব্যয় নির্বাহ কখনই সম্ভব নয় এসব দেশে। এজন্য স্বামী-স্ত্রী দুজনের আয়-উপার্জন অপরিহার্য। এটা শুধু এখানেই নয়, ইউরোপ, আমেরিকা, কানাডার মতো প্রত্যেক দেশেরই রূঢ় বাস্তবতা এটি। তবে চাকরি, বাসা-বাড়ি না থাকলে কল্যাণ রাষ্ট্রের বেকার ভাতা, বাসা ভাড়া ও অন্যান্য মৌলিক চাহিদাগুলো পূরণের জন্য সমাজসেবা অধিদফতর আছে।
যদি সিঙ্গেল ব্যক্তি বা পরিবার জীবনে দুজনের চাকরি থাকে, তাহলে অর্জিত সীমিত আয় দিয়ে জীবনযাপনে গাড়ি, বাড়ি, টিভি, ফ্রিজ বা কাক্সিক্ষত বৈষয়িক স্বপ্ন-আকাক্সক্ষা পূরণ কোন অসম্ভব বিষয় নয়, যদি অর্থনৈতিক পরিকল্পনাটি সুচিন্তিতভাবে করা যায়। একটি নির্ভরযোগ্য টেকসই চাকরি ও নিয়মিত মাসিক আয়ের নিশ্চয়তা থাকলে নির্ধারিত মেয়াদে সুদ ছাড়া অথবা সুবিধাজনক মেয়াদে খুব কম সুদে ব্যাংকগুলো ব্যক্তির ইচ্ছা পূরণে অর্থঋণ জোগান দিতে সদাপ্রস্তুত। বাড়ি-গাড়ি মায় যা কেনা প্রয়োজন, সমস্যা নেই।
তখন বা এখন সুইডেনের যে কোন গাড়ির বাজার থেকে ৫০-৬০ হাজার থেকে এক লক্ষ ক্রোনার দিয়ে একটি চার চাকার ব্র্যান্ড নিউ গাড়ি কেনা এ দেশের সাধারণ চাকরিজীবীদের জন্য কোন স্বপ্ন বা বিলাসবহুল বিষয় নয়। ঋণ করে কিনলেও তা অল্প কয়েক বছরের মধ্যেই বেতনের টাকায় কিস্তিতে পরিশোধ করা সম্ভব। কিন্তু বাংলাদেশে একটি গাড়ি বা বাড়ির দাম গগনচুম্বী হওয়ায় তা সাধারণ মানুষের ক্রয়ক্ষমতার তুলনায় সারা জীবনের জন্য একটি দুঃস্বপ্নের মতো বিষয়ই বটে! এর সূত্র ধরে বলা যায়, সাধারণ মানুষের উপার্জন, ক্রয়ক্ষমতা ও জীবনযাত্রার মানের দিক থেকে বাংলাদেশ হলো পৃথিবীর মধ্যে অন্যতম একটি ব্যয়বহুল দেশ। এ কথা ক্রয়ক্ষমতার সমতাতত্ত্ব বা পারচেজিং পাওয়ার প্যারিটির নিরিখে ভুল প্রমাণের সুযোগ নেই।
সেকাল (৯০ দশক) এবং একাল বা বর্তমান সময়ে বাংলাদেশে একজন সাধারণ চাকরিজীবীর বৈধ আয়ের অর্থে যেখানে পছন্দসই একটি টিভি, ফ্রিজ, সোফা, ফার্নিচার, গাড়ি-বাড়ি, ফ্ল্যাট বা কাক্সিক্ষত কোন বস্তু কেনা সারা জীবনের একটি দুঃস্বপ্নের মতো বিষয়, সেখানে এই কল্যাণ রাষ্ট্রে ৫০০ ক্রোনারে একটি রঙিন টিভি, ফ্রিজ, সোফা, বেড ইত্যাদি কেনা সম্ভব ছিল সেই ৯০ দশকেই। এখনও তা সম্ভব, তবে সে জায়গায় মূল্যস্ফীতির সহনীয় খ—গটা চেপেছে কিঞ্চিত মাত্রায়। ঐ সময় একজন সিঙ্গেল মানুষের বাসাভাড়ায় ব্যয় হতো দেড় থেকে দুই হাজার ক্রোনার। ৩০ বছর পর এখন সে ভাড়া দ্বিগুণ। রাজধানী শহর স্টকহোমে আমার তিন রুমের (৭২ বর্গ মিটার আয়তনের) যে বাসার ভাড়া ছিল সাড়ে তিন হাজার ক্রোনার, আজ তা ৩০ বছর পর দাঁড়িয়েছে সাত হাজার ছয় শ’ ক্রোনারে। বাংলাদেশের রাজধানী শহরে এই আয়তনের একটি সাধারণ মানের বাসা ভাড়া ২০-২৫ হাজার টাকার কম নয়। তাহলে উপার্জন এবং ব্যয়ের অংকের তারতম্যটা দাঁড়াচ্ছে আকাশ পাতাল। ফিরে যাই ৯০ দশকের সেই সময়ের চালচিত্রের দিকে। সেই সময়ের ভোগ্যপণ্যের মূল্যের পাশাপাশি বিশ্ববাজারে বর্তমান অগ্নিমূল্যের দশাটা ব্রাকেট বন্দি করে দিলাম। তখন থাইল্যান্ড থেকে আসা ১০ কেজি জেসমিন চালের ব্যাগের দাম ছিল ৬০-৭০ ক্রোনার (বর্তমান মূল্য ২৫০-৩০০), আটার কেজি ৪-৫ ক্রোনার (বর্তমান ১৬-২৪ ), ফ্রোজেন মুরগি প্রতিকেজি ৭-৮ ক্রোনার (বর্তমান ২৫-৩৫), গরুর মাংস কেজিপ্রতি ৩৫-৪০ ক্রোনার (বর্তমান ৭৫-৯০), মাংসের কিমা প্রতিকেজি ছিল ৩০-৩৫ ক্রোনার (বর্তমান ৭৫-১৭০), স্যামন মাছ প্রতিকেজি ৩০-৪০ ক্রোনার (বর্তমান ১২০-২৫০), ৩০টি মুরগির ডিমের প্যাকেট ১৫ ক্রোনার (বর্তমান ৬৫-৭০), মসুর ডাল প্রতিকেজি ৮-১০ ক্রোনার (বর্তমান ২৫-৪০), চিনি প্রতিকেজি ৭-৮ ক্রোনার (বর্তমান ১২-১৪), ১০ লিটার সূর্যমুখী তেল ৫০-৬০ ক্রোনার (বর্তমান ৬০০), প্রতিলিটার র‌্যাপস ওয়েল ৮-১০ ক্রোনার (বর্তমান ৩০-৪৫), ২০০ গ্রাম কফি- নেসক্যাফে ৩০-৩৫ ক্রোনার (বর্তমান ১১০-১২০), আলু প্রতিকেজি ২-৩ ক্রোনার (বর্তমানে ১৬-২০), টমেটো প্রতিকেজি ৫-১০ ক্রোনার (বর্তমান ৩০-৭০), আপেল ৮-১০ ক্রোনার (বর্তমান ৫০-৭০), কলা ৫-৬ ক্রোনার (বর্তমানে ১৬-৩০)। মোটামুটিভাবে মানুষের দৈনন্দিন জীবনে নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যগুলোর বিষয়ই এখানে উল্লেখ করলাম। তবে এই পণ্যমূল্যগুলো উল্লেখ করা হলো মোট এক কোটি জনসংখ্যা অধ্যুষিত সুইডেনে (মোট আয়তন- সাড়ে চার লক্ষ বর্গকিলোমিটার, বাংলাদেশের আয়তনের তিনগুণ বড়) বসবাসরত ২০০টির বেশি বিভিন্ন দেশের (প্রায় ২০ লক্ষ) অভিবাসী গোষ্ঠীর ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের মূল্য তালিকা থেকে। এই দোকানগুলোতে বড় বড় সুইডিশ চেইন শপগুলোর মূল্য থেকে উল্লেখযোগ্য রকম কম। ধরা যাক, যে আলুর কেজি সুইডিশ দোকানে ১৮ ক্রোনার, সেই আলু অভিবাসীর দোকানে ১০-১২ ক্রোনার প্রতিকেজি। অভিবাসী ব্যবসায়ীর দোকান থেকে যে গরুর মাংস কেনা যায় ৭৫-১০০ ক্রোনারের মধ্যে, সেই মাংসই সুইডিশ দোকান থেকে কিনতে পকেট হতে বেরিয়ে যাবে ২৫০-৪০০ ক্রোনার। মূল জাতিগোষ্ঠী সুইডিশরা দাম বেশি হলেও সাধারণত সুইডিশ দোকান থেকেই কেনাকাটা করে থাকেন বা করতে পছন্দ করেন বেশি স্বাস্থ্য সচেতনতা, স্বজাত্যবোধ ও দেশপ্রেমের কারণে। কোন সুইডিশ নিজস্ব গাড়ি কেনার ক্ষেত্রে নিজের দেশে তৈরি গাড়ি ভোলভো বা সাব-স্ক্যানিয়াকেই চয়েস দেবে আগে। বিদেশী গাড়ি তাদের তেমনভাবে সহজে আকৃষ্ট করে না। বিশ্বের মডেল অতি শান্তিপ্রিয় এই জাতির মরাল ও দেশপ্রেম এতটাই তীব্র।
নব্বই দশক থেকে সাম্প্রতিক সময়ের যে চালচিত্রের কথা আলোচনা করলাম, তা কেবল সুইডেন বা নর্ডিক দেশের মধ্যেই সীমাবদ্ধ নয়, পশ্চিম ইউরোপের চালচিত্রের ক্ষেত্রেও প্রায় অভিন্ন। তবে সঙ্কটময় সাম্প্রতিক পরিস্থিতিতে কিছু কিছু পশ্চিম ইউরোপের দেশে সরকারী অনুদান দিয়ে দ্রব্যমূল্য নিয়ন্ত্রণে রাখার উদ্যোগটিও উল্লেখ্য ও অনুকরণীয়। যেমন- জার্মানিতে মাথাপিছু ৩০০ ইউরো ভর্তুকি দেয়া হয়েছে, যাতে করে জ্বালানি তেলের মূল্য অতিমাত্রায় বেড়ে না যায়। আর এ মাস অর্থাৎ জুন থেকে জার্মান সরকার দেশব্যাপী সকল জনপরিবহন- বাস, রেল ও মেট্রোতে প্রায় বিনামূল্যে (মাত্র ৯ ইউরোতে) তিন মাস ভ্রমণের ব্যবস্থা করেছে। স্ক্যান্ডিনেভীয় দেশগুলো তা করেনি। করোনাকাল ও সাম্প্রতিক রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধের আগে নিত্যপণ্যের দাম জার্মানির চেয়ে বেশি ছিল। সুইডেনে মাথাপিছু আয় জার্মানির চেয়ে একটু কম হলেও ব্যয় কিন্তু আনুপাতিকভাবে বেশি।
স্বাভাবিকভাবেই প্রশ্ন উঠতে পারে, অভিবাসী দোকানগুলোতে পণ্যমূল্যের দাম কম কেন? জবাবটা সোজা- সুইডিশ ব্যবসা প্রতিষ্ঠানগুলো ট্রেড ইউনিয়ন থেকে শুরু করে সংশ্লিষ্ট সকল কর্তৃপক্ষের ব্যবসা ও চাকরির কমপ্ল্যায়েন্স মেনে চলে স্বচ্ছতার নাগপাশে আবদ্ধ থেকে ব্যয়বহুল প্রক্রিয়ায় ব্যবসা পরিচালনা করে। অপরদিকে অভিবাসী গোষ্ঠী খোলা আকাশের নিচে সামিয়ানা টাঙিয়ে শবজি, ফল-মূল ও কাঁচাবাজারের ব্যবসাসহ কম ভাড়ায় স্টোর এবং পরিবার-পরিজন, স্বজন বা সস্তাশ্রমে অভিবাসী শ্রেণীর মানুষ দিয়ে ব্যবসা করার সুযোগটা কাজে লাগিয়ে থাকে।

১৫ জুন, ২০২২
লেখক : সুইডেন প্রবাসী সাংবাদিক, স্টকহোম
dehosain@gmail.com

The Daily Janakantha website developed by BIKIRAN.COM

Source: জনকন্ঠ

সম্পর্কিত সংবাদ
বানভাসিদের নিয়ে ফকির শাহাবুদ্দিনের গান

বানভাসিদের নিয়ে ফকির শাহাবুদ্দিনের গান সংস্কৃতি অঙ্গন 25 Jun 2022 25 Jun 2022 Daily Janakantha সংস্কৃতি প্রতিবেদক ॥ বানভাসিদের নিয়ে Read more

খুলল পদ্মার দ্বার, উদ্বোধন করলেন প্রধানমন্ত্রী

খুলল পদ্মার দ্বার, উদ্বোধন করলেন প্রধানমন্ত্রী জাতীয় 25 Jun 2022 25 Jun 2022 Daily Janakantha অনলাইন ডেস্ক ॥ স্বপ্ন পুরণের Read more

স্বগর্বে ফিরলেন সেই আবুল হোসেন

স্বগর্বে ফিরলেন সেই আবুল হোসেন জাতীয় 25 Jun 2022 25 Jun 2022 Daily Janakantha অনলাইন ডেস্ক ॥ পদ্মা সেতুর উদ্বোধন Read more

ঈদের নাটকে শামীমা নাজনীন

ঈদের নাটকে শামীমা নাজনীন সংস্কৃতি অঙ্গন 25 Jun 2022 25 Jun 2022 Daily Janakantha সংস্কৃতি প্রতিবেদক ॥ হুমায়ূন আহমেদের ‘শ্রাবণ Read more

পদ্মা সেতুর ডাক টিকিট উন্মোচন করলেন প্রধানমন্ত্রী

পদ্মা সেতুর ডাক টিকিট উন্মোচন করলেন প্রধানমন্ত্রী জাতীয় 25 Jun 2022 25 Jun 2022 Daily Janakantha অনলাইন ডেস্ক ॥ প্রধানমন্ত্রী Read more

নকশীকাঁথার গানে পদ্মা সেতু

নকশীকাঁথার গানে পদ্মা সেতু সংস্কৃতি অঙ্গন 25 Jun 2022 25 Jun 2022 Daily Janakantha সংস্কৃতি প্রতিবেদক ॥ স্বপ্নের পদ্মা সেতু Read more

আমরা নিরপেক্ষ নই ,    জনতার পক্ষে - অন্যায়ের বিপক্ষে ।    গণমাধ্যমের এ সংগ্রামে -    প্রকাশ্যে বলি ও লিখি ।   

NewsClub.in আমাদের ভারতীয় সহযোগী মাধ্যমটি দেখুন