By: Daily Janakantha

শক্তিশালী সিন্ডিকেটের কারসাজি, ভোগ্যপণ্যের বাজার অস্থির

প্রথম পাতা

13 Jun 2022
13 Jun 2022

Daily Janakantha

এম শাহজাহান ॥ প্রস্তাবিত বাজেট ঘোষণার পর আরেক দফা বাড়ল অধিকাংশ খাদ্যপণ্যের দাম। ভোজ্যতেল, চাল, ডাল, চিনি, ব্রয়লার মুরগি ও ডিমের মতো পণ্যের দাম বাড়ায় বাজারে অস্বস্তি তৈরি হয়েছে। বিশেষ করে সয়াবিন তেলের দাম বাড়ানোর ফলে মধ্যবিত্তের জীবনযাত্রায় বাড়তি খরচ যোগ হয়েছে। ঢাকাসহ দেশের অন্য শহরাঞ্চলের মানুষ খোলা সয়াবিন ও বোতলজাত সয়াবিন তেল ব্যবহার করে থাকেন। এই সয়াবিন তেলের লিটার প্রতি দাম বাড়ানো হয়েছে ৫-৭ টাকা পর্যন্ত। খুচরা বাজারে সরকার নির্ধারিত মূল্যের চেয়ে আরও ১০ টাকা পর্যন্ত বেশি দিতে হচ্ছে ভোক্তাকে। একই অবস্থা দেশের প্রধান খাদ্যপণ্য চালের বাজারে। শক্তিশালী সিন্ডিকেট চক্রের কারসাজির কারণে কমছে না চালের দাম। প্রস্তাবিত বাজেটে অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল মূল্যস্ফীতি নিয়ন্ত্রণকে সর্বোচ্চ অগ্রাধিকার দিয়েছেন। কিন্তু বাজেট ঘোষণার পর থেকে বাজারে জিনিসপত্রের দাম বেড়ে যাচ্ছে। খাদ্যপণ্যের মূল্যস্ফীতির পেছনে অতি মুনাফাখোর অসাধু ব্যবসায়ীদের কারসাজি রয়েছে বলে মনে করেন বিশেষজ্ঞরা। তাদের মতে, দ্রুত পণ্যমূল্য কমানোর উদ্যোগ নিতে হবে।
জানা গেছে, অসাধু সিন্ডিকেট কর্পোরেট ব্যবসায়ীদের কারসাজির কারণে ভোজ্যতেল, চাল, ডাল, চিনি এবং অন্যান্য পণ্যের দাম বাড়ছে। এদের সহযোগিতা করছে উচ্চ পর্যায়ের কিছু সরকারী আমলা-কর্মকর্তারা। আন্তর্জাতিক বাজারের সর্বশেষ হিসাব অনুযায়ী বিশ্বে ভোজ্যতেলের দাম এখন কমতির দিকে রয়েছে। ইন্দোনেশিয়া ফের রফতানি কার্যক্রম শুরু করায় পামঅয়েল নিয়েও কোন সমস্যা দেখা যাচ্ছে না। অথচ বাজেট ঘোষণার দিন ‘দাম সমন্বয়ের’ নামে আরেক দফা সয়াবিন তেলের দাম বাড়িয়ে নিয়েছেন ব্যবসায়ীরা। অথচ পামঅয়েলের দাম কমানো হলেও সেই বিষয়টি নিয়ে বাণিজ্য মন্ত্রণালয় থেকে কিছু বলা হচ্ছে না। এমনকি মিল মালিক ও পাইকারি ব্যবসায়ীরাও পামঅয়েল নিয়ে কোন কথা বলছে না। ভোক্তারাও বিষয়টি না জেনে বেশি দামে পামঅয়েল কিনছেন। ফলে আগের মতো উচ্চমূল্যে বিক্রি হচ্ছে পামঅয়েল। দেশের শীর্ষ ৬-৮টি কর্পোরেট প্রতিষ্ঠান দেশের ভোগ্যপণ্যের বাজার নিয়ন্ত্রণ করছে। সরকারী বিভিন্ন অভিযানের মুখে ইতোমধ্যে এসব প্রতিষ্ঠান চিহ্নিত হয়েছে। একাধিক মামলা হয়েছে এসব প্রতিষ্ঠানের প্রধান নির্বাহী ও মালিকদের বিরুদ্ধে। কিন্তু আইনের ফাঁকফোকড় পেরিয়ে এরাই বাজার অস্থিরতায় কাজ করছে।
সরকারী বাজার নিয়ন্ত্রণকারী সংস্থা টিসিবির তথ্যমতে, সোমবার প্রতিলিটার পামঅয়েল বিক্রি হয়েছে ১৭০-১৭২ টাকায়। অথচ সরকার নির্ধারিত মূল্যে বিক্রি হলে প্রতিলিটার ১৫৮ টাকা দিয়ে কিনতে পারতেন একজন ভোক্তা। একইভাবে সয়াবিন তেলের পাঁচ লিটারের ক্যান সরকার নির্ধারিত মূল্য ৯৯৭ টাকার পরিবর্তে ১০১০-১০২০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে খুচরা বাজারে। নির্ধারিত দামে ভোজ্যতেল বিক্রি না হওয়ায় সাধারণ মানুষের কষ্ট বেড়েছে। খিলগাঁও সিটি কর্পোরেশন কাঁচাবাজার থেকে নিত্যপণ্যের কেনাকাটা করছিলেন তিলপাপাড়ার বাসিন্দা জামাল উদ্দিন। তিনি জানান, বাজেট ঘোষণার পর থেকে ভোজ্যতেলের দাম বেশি নেয়া হচ্ছে। পামঅয়েলের দাম কমানোর বিষয়টি তিনি জানেন না উল্লেখ করে বলেন, এ বিষয়টি সম্পূর্ণ গোপন করেছেন ব্যবসায়ীরা। তারা আগের মতো বেশি দামে সব ধরনের পামঅয়েল বিক্রি করছেন। ওই এলাকার মুদিপণ্যের ব্যবসায়ী কামাল হোসেন বলেন, পামঅয়েলের দাম কমানোর বিষয়টি মিলার থেকে শুরু করে পাইকার ব্যবসায়ীরা গোপন করেছেন। এ কারণে খুচরা বাজারে পামঅয়েলের দাম কমেনি। প্রতিলিটার পামঅয়েল এখনো ১৭০-১৭৫ টাকায় বিক্রি হচ্ছে খুচরা বাজারে। এছাড়া বাজেট ঘোষণার পর আরেক দফা বেড়েছে সব ধরনের চালের দাম। প্রতিকেজি সরু মিনিকেট ও নাজিরশাইল চাল বিক্রি হচ্ছে মানভেদে ৭২-৮৫ টাকা, মাঝারি মানের পাইজাম ও লতা চাল ৫৫-৬০ এবং মোটা স্বর্ণা ও চায়না ইরি ৫০-৫৫ টাকায় বিক্রি করা হচ্ছে। বাজারে ৫০ টাকার নিচে কোন চাল পাওয়া যাচ্ছে না। চালের মতো বেশি দামে বিক্রি হচ্ছে আটা, ডাল, চিনি, ব্রয়লার মুরগি ও ডিম। এছাড়া অন্যান্য পণ্যের দামও চড়া। ভোক্তারা বলছেন, বাজেট ঘোষণার পর কোন জিনিসের দাম কমেনি। বরং বেশ কয়েকটি পণ্যের দাম বেড়ে গেছে। যদিও বাজেট বক্তৃতায় অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল বলেছেন, দ্রব্যমূল্য নিয়ন্ত্রণকে সবচেয়ে বড় চ্যালেঞ্জ হিসেবে নেয়া হয়েছে। ভোগ্যপণ্যের দাম কমানোর বিষয়টিকে সর্বোচ্চ অগ্রাধিকার দেয়া হয়েছে। অথচ বাজারে তার প্রতিফলন দেখা যাচ্ছে না। প্রস্তাবিত বাজেটে নিত্যপণ্যের দাম কমানোর তেমন কোন কার্যকর পদক্ষেপ নেই বলে গবেষণা সংস্থা সেন্টার ফর পলিসি ডায়ালগ (সিপিডি) বাজেট প্রতিক্রিয়ায় তীব্র সমালোচনা করেছে। সংস্থাটির নির্বাহী পরিচালক ড. ফাহমিদা খাতুন জানান, প্রস্তাবিত বাজেটে দ্রব্যমূল্য নিয়ন্ত্রণের বাস্তবিক কোন পদক্ষেপ নেই। অথচ বিশ্ব পরিস্থিতি বিবেচনায় এদিকটায় সবচেয়ে বেশি নজর দেয়া প্রয়োজন ছিল। সংস্থাটির মতে, দেশের ভোগ্যপণ্যের বাজার অস্থিরতায় অসাধু ব্যবসায়ীদের হাত রয়েছে। এর ফলে ভোগ্যপণ্যে মূল্যস্ফীতি সবচেয়ে বেশি হয়ে থাকে। এদিকে, প্রস্তাবিত ২০২২-২৩ অর্থবছরের বাজেটে মূল্যস্ফীতি নিয়ন্ত্রণকে প্রধান চ্যালেঞ্জ হিসেবে দেখছেন অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল। এ লক্ষ্যে বিশ্বের অন্যান্য দেশে বাড়লেও দেশে ৫ দশমিক ৬ শতাংশ মূল্যস্ফীতি নির্ধারণের প্রস্তাব করা হয়েছে। বাজেট বক্তৃতায় অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল বলেন, চাহিদা ও সরবরাহের মধ্যে অসঙ্গতি রোধের মাধ্যমে মূল্যস্ফীতি নিয়ন্ত্রণে সরকার বদ্ধপরিকর। যদিও রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধের ধাক্কায় ওলটপালট হয়ে যাওয়া বিশ্ব অর্থনীতির প্রভাব বাংলাদেশেও পড়েছে। জ্বালানি তেল, খাদ্যপণ্যসহ সব ধরনের পণ্যের দাম বৃদ্ধি এবং জাহাজ ভাড়া বাড়ায় আমদানি খরচ অস্বাভাবিক বেড়ে গেছে।
বাজারে ডলারের সঙ্কট দেখা দিয়েছে। অস্থির হয়ে উঠেছে মুদ্রাবাজার। বাংলাদেশ ব্যাংক রিজার্ভ থেকে বিপুল পরিমাণ ডলার ছেড়েও পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনা যাচ্ছে না। চড়ছে মূল্যস্ফীতির পারদ। বিদায়ী ২০২১-২২ অর্থবছরে মূল্যস্ফীতি ৫ দশমিক ৩ শতাংশে বেঁধে রাখার ঘোষণা দিয়েছিলেন অর্থমন্ত্রী, তবে বিশ্ব পরিস্থিতির কারণে তা সম্ভব হয়নি। এই সময়ে বেড়েছে মূল্যস্ফীতি। মূল্যস্ফীতির বৈশ্বিক কারণের মধ্যে রয়েছে-বাণিজ্য সহযোগীদের মূল্যস্ফীতি, জ্বালানি তেলের দাম বাড়া, টাকার অবচিতি, বৈশ্বিক সরবরাহ ব্যবস্থার প্রতিবন্ধকতা এবং রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধ যে বিষয়গুলো আমাদের নিয়ন্ত্রণের বাইরে। তিনি বলেন, দেশের স্বল্প-আয়ের জনগোষ্ঠী যাতে কম দামে নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্য কিনতে পারে সে জন্য সরকার ন্যায্যমূল্যে খোলাবাজারে ট্রেডিং কর্পোরেশন অব বাংলাদেশের (টিসিবি) মাধ্যমে সেগুলো বিক্রি করছে। শহর অঞ্চলে ওএমএস-এর আওতায় চাল ও গম বিক্রয় অব্যাহত রয়েছে। রমজানে ১ কোটি পরিবারকে কার্ডের মাধ্যমে ৬টি নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্য স্বল্পমূল্যে সরবরাহ করা হয়েছে। সরকারী সংস্থা টিসিবি এ কার্যক্রম অব্যাহত রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। এছাড়া দরিদ্র জনগোষ্ঠীর একটা উল্লেখযোগ্য অংশকে সামাজিক নিরাপত্তা বলয়ের আওতায় আনা হয়েছে যাদের কাছে ডিজিটাল ব্যবস্থায় নগদ অর্থ দেয়ার সক্ষমতা সরকারের রয়েছে। এছাড়া ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদফতর এবং জেলা প্রশাসন মোবাইল কোর্টের মাধ্যমে মজুদকারীদের বিরুদ্ধে যথাযথ ব্যবস্থা নিচ্ছে। পাশাপাশি, আন্তর্জাতিক বাজারে দাম বাড়ার কারণে আগামী অর্থবছরে জ্বালানি তেল, প্রাকৃতিক গ্যাস, সার ও বিদ্যুত খাতে সরকারের যে ঘাটতি হবে তা আমরা মূল্য বাড়িয়ে ভোক্তা পর্যায়ে শতভাগ চাপিয়ে দেয়া হবে না। এছাড়া মূল্যস্ফীতি নিয়ন্ত্রণকে সর্বোচ্চ অগ্রাধিকার দিয়ে ৬টি চ্যালেঞ্জ চিহ্নিত করেছেন অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল। প্রথম চ্যালেঞ্জ হিসেবে মূল্যস্ফীতি নিয়ন্ত্রণে আনা এবং অভ্যন্তরীণ বিনিয়োগ বৃদ্ধি করাকে চিহ্নিত করা হয়েছে। দ্বিতীয়ত, গ্যাস, বিদ্যুত ও সারে ভর্তুকির জন্য অর্থের সংস্থান করা। তৃতীয়ত, বৈদেশিক সহায়তার অর্থ ব্যবহার এবং মন্ত্রণালয় ও বিভাগের উচ্চ-অগ্রাধিকারের প্রকল্পগুলো নির্ধারিত সময়ে শেষ করা। চতুর্থত, শিক্ষা ও স্বাস্থ্য খাতের প্রকল্প যথাসময়ে বাস্তবায়ন। পঞ্চম চ্যালেঞ্জ হলো ভ্যাট সংগ্রহের পরিমাণ এবং ব্যক্তি আয়করদাতার সংখ্যা বাড়ানো। সর্বশেষ চ্যালেঞ্জ হিসেবে টাকার বিনিময় হার স্থিতিশীল এবং বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ সন্তোষজনক পর্যায়ে রাখাকে চিহ্নিত করেছেন অর্থমন্ত্রী।

The Daily Janakantha website developed by BIKIRAN.COM

Source: জনকন্ঠ

সম্পর্কিত সংবাদ
ঈদের নাটকে শামীমা নাজনীন

ঈদের নাটকে শামীমা নাজনীন সংস্কৃতি অঙ্গন 25 Jun 2022 25 Jun 2022 Daily Janakantha সংস্কৃতি প্রতিবেদক ॥ হুমায়ূন আহমেদের ‘শ্রাবণ Read more

নকশীকাঁথার গানে পদ্মা সেতু

নকশীকাঁথার গানে পদ্মা সেতু সংস্কৃতি অঙ্গন 25 Jun 2022 25 Jun 2022 Daily Janakantha সংস্কৃতি প্রতিবেদক ॥ স্বপ্নের পদ্মা সেতু Read more

নানা আয়োজনে নজরুল জয়ন্তী উদ্যাপন

নানা আয়োজনে নজরুল জয়ন্তী উদ্যাপন সংস্কৃতি অঙ্গন 25 Jun 2022 25 Jun 2022 Daily Janakantha নিজস্ব সংবাদদাতা, শাহজাদপুর ॥ নানা Read more

পদ্মা সেতুর ডাক টিকিট উন্মোচন করলেন প্রধানমন্ত্রী

পদ্মা সেতুর ডাক টিকিট উন্মোচন করলেন প্রধানমন্ত্রী জাতীয় 25 Jun 2022 25 Jun 2022 Daily Janakantha অনলাইন ডেস্ক ॥ প্রধানমন্ত্রী Read more

পদ্মা সেতু উদ্বোধনে দেশবাসীর উচ্ছ্বাস

পদ্মা সেতু উদ্বোধনে দেশবাসীর উচ্ছ্বাস দেশের খবর 25 Jun 2022 25 Jun 2022 Daily Janakantha জনকণ্ঠ ডেস্ক ॥ স্বপ্নের ‘পদ্মা Read more

সেতুর চেয়েও বড়

সেতুর চেয়েও বড় প্রথম পাতা 24 Jun 2022 24 Jun 2022 Daily Janakantha বিশ্বের কোন প্রকল্প নিয়ে এত আলোচনা হয়নি। Read more

আমরা নিরপেক্ষ নই ,    জনতার পক্ষে - অন্যায়ের বিপক্ষে ।    গণমাধ্যমের এ সংগ্রামে -    প্রকাশ্যে বলি ও লিখি ।   

NewsClub.in আমাদের ভারতীয় সহযোগী মাধ্যমটি দেখুন